1. admin@voicectg.com : admin :
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:১৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভাস্কর্য বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে বিপাকে হেফাজত | এবার যখন আমরা ধরবো, ফাইনাল হয়ে যাবে-পরশ | দ্রত সেবা নিশ্চিতে সিএমপিতে সংযুক্ত হলো ৪টি বিশেষ কার | চিম্বুকে ৫ তারকা হোটেল নির্মাণের প্রতিবাদে উত্তাল পার্বত্য ৩ জেলা | যুবলীগ যদি মাটে নামে ওস্তাদ দৌড়াইয়া কুল পাবেননা-চট্টগ্রামে নিক্সন চৌধুরী অবশেষে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর আগামী সপ্তাহে শুরু | হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা মারা গেছেন | যুদ্ধাপরাধী জামাত হেফাজতের ব্যানারে একত্রিত হচ্ছে-শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল | আমরা কোনভাবেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে নয়, ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে | চার দিন ধরে নিখোঁজ রাঙ্গুনিয়ার সেই আকাশ শীল |

আগামীকাল ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস

সম্পাদকীয়
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬১ বার পড়া হয়েছে

আজ সেই মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস ১৯৭৫-২০২০ ইং হয়ে গেছে ৪৫ টি বছর, ৭৫ এর ১৫ আগষ্টের পরে বাঙালি আজকের এদিনে আবারও হারিয়ে ছিলাো জাতির তিন শ্রেষ্ঠ সন্তানসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাদের, রাষ্ট্র ও তাদের পরিবার আমরা চিরদিনের মতো হারিয়েছি স্বাধীনতা যুদ্ধের তিন অকুতোভয় মৃত্যন্জয়ী বীরযোদ্ধাকে।

৭ নভেম্বর ১৯৭৫ সকালে, শেরে বাংলা নগরে অবস্থিত ১০ম বেঙ্গল রেজিমেন্টের অফিসার মেসে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরউত্তম, কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদা বীরবিক্রম এবং লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু তাহের মোহাম্মদ হায়দার বীরউত্তম ‘কে।

নির্মম নিষ্ঠুরতম হত্যার ৪৫ বছর শুর হয়েছে বিচার হয়নি, আমরা মুক্তিযোদ্ধা হত্যার বিচারের দাবী আদায় করতে পারিনি আজ অবধি। ত্রিশ লক্ষাধিক শহীদের রক্তস্নাত বাংলাদেশের মাটি তাঁর বুকে পরম মমতায় আগলে রেখেছে তাঁর তিন বীর সন্তানকে।

তাঁদের শেষ ছবিগুলোর সাথে সাথে সমাধির ছবিও রয়েছে এখানে। ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের সি,এম,এইচ মর্গের সামনের মাঠে রাখা হয়েছিল তাঁদের মৃতদেহ। ছবিগুলো জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তুলেছিলেন ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট গ্যারিসন সিনেমা হল সংলগ্ন ‘মিরেজ স্টুডিও’র মালিক মরহুম জসিম। তিনি শহীদ কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদা’র দূর সম্পর্কীয় আত্মীয়। বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম নৃশংসতার প্রামান্য দলিল এই চারটি ছবি।

যদি আমার রক্তবিন্দু দিয়ে আপনাদের বীরত্বগাঁথা লিখি তবুও ঋণ শোধ হবার নয়…

পাকিস্তানী পশুশক্তি হত্যা করতে পারেনি আপনাদের। যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সামনে দাঁড়িয়ে, আপনাদের পরিকল্পনায় পর্যুদস্ত হয়েছিলো তথাকথিত পঞ্চম সেরা সেনাবাহিনী। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে আপনারা কিংবদন্তীদের চাইতেও বড় কিংবদন্তী হয়ে থাকবেন।

গেরিলা ১৯৭১ পরিবার আজকের বেদনাময় দিনে তাঁদের পরিবারের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করছি। পরম করুনাময় শহীদ বীর’দের চিরশান্তি দিন।

আজকে এদিনে আমরা ভয়েস সিটিজি পরিবার।
সকল বীর শহীদদের বিনম্র শ্রদ্ধাবনত চিত্তে জানাই লাল সালাম।

বিশেষ কৃতজ্ঞতাঃ এহতেশাম হুদা (শহীদ কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদার পুত্র)।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব