1. admin@voicectg.com : admin :
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:২২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভাস্কর্য বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে বিপাকে হেফাজত | এবার যখন আমরা ধরবো, ফাইনাল হয়ে যাবে-পরশ | দ্রত সেবা নিশ্চিতে সিএমপিতে সংযুক্ত হলো ৪টি বিশেষ কার | চিম্বুকে ৫ তারকা হোটেল নির্মাণের প্রতিবাদে উত্তাল পার্বত্য ৩ জেলা | যুবলীগ যদি মাটে নামে ওস্তাদ দৌড়াইয়া কুল পাবেননা-চট্টগ্রামে নিক্সন চৌধুরী অবশেষে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর আগামী সপ্তাহে শুরু | হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা মারা গেছেন | যুদ্ধাপরাধী জামাত হেফাজতের ব্যানারে একত্রিত হচ্ছে-শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল | আমরা কোনভাবেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে নয়, ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে | চার দিন ধরে নিখোঁজ রাঙ্গুনিয়ার সেই আকাশ শীল |

সিলেটে রায়হান হত্যা আসামি এসআই আকবর জনতার হাতে আটক

ডেক্স নিউজ
  • প্রকাশিত : সোমবার, ৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৯ বার পড়া হয়েছে

সিলেটে আলোচিত রায়হান হত্যা মামলার আসামি এসআই আকবর হোসেন কানাইঘাটে জনতার হাতে আটক। ভারত বাংলাদেশ সিমান্তে স্হানীয় খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজন আকবরকে আটক করে, পরে স্হানীয় থানায় খবর দেয় বলে জানাগেছে।
রায়হান হত্যা জিন্দবাজার পুলিশ পাড়ির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ছিনতাইকালে গণপিটুনিতে মারা গেছেন রায়হান। তবে নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ ছিল, পুলিশ ধরে নিয়ে নির্যাতন করে ১০ হাজার টাকা দাবী করে না পেয়ে পরে রায়হানকে হত্যা করেছে। এরপর পরিবারের অভিযোগ ও রায়হানের স্ত্রী বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়েরের ভিত্তিতে তদন্ত কমিটি গঠিত করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ হেফাজতে রায়হান উদ্দিনের মৃত্যু ও নির্যাতনের প্রাথমিক সত্যতাও পায়।

এর প্রেক্ষিতে, বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। অন্য তিনজন হলেন, কনস্টেবল হারুনুর রশীদ, কনস্টেবল তৌওহিদ মিয়া, কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস।

তিন পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহারও করা হয়েছে। প্রত্যাহারকৃত পুলিশ সদস্যরা হলেন, এএসআই আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী, কনস্টেবল সজিব হোসেন।

সিসি ক্যামেরার ফুটেজ অনুযায়ী, ১০ই অক্টোবর রাত ৩টা ৯ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডে স্বাভাবিক অবস্থায় রায়হানকে সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে আনা হয়। পরে সকাল ৬টা ২৪ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে ফাঁড়ি থেকে বের করা হয়। ৬টা ৪০ মিনিটে ভর্তি করা হয় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে তিনি মারা যান।

রায়হানের অস্বাভাবিক মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে পুনঃময়নাতদন্তের জন্য ১৫ই অক্টোবর কবর থেকে রায়হানের মরদেহ উত্তোলন করা হয়। নেয়া হয় ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের রিপোর্টে ১১১টি আঘাতের চিহ্নের কথা বলা হয়। যার মধ্যে ১৪টি গুরুতর ছিলো বলে উল্লেখ করা হয়ে।

ওই রিপোর্টে বলা হয়, রায়হানের দুটি আঙুলের নখ উপড়ে ফেলা হয়। মৃত্যুর ২ থেকে ৪ ঘণ্টা আগে এসব নির্যাতন চালানো হয়। ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ থেকে ময়না তদন্তের রিপোর্ট পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব